মাদক ও চাঁদাবাজ মুক্ত ঢাকা-১৮ আসন গড়ে তোলা হবে :খসরু চৌধুরী

মাদক ও চাঁদাবাজ মুক্ত ঢাকা-১৮ আসন গড়ে তোলা হবে: খসরু চৌধুরী

নিজস্ব প্রতিবেদক
আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঢাকা-১৮ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী (কেটলি মার্কা) ও ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক মো. খসরু চৌধুরী সিআইপি দোয়া মাহফিলের মাধ্যমে নির্বাচনি কার্যক্রম শুরু করেছেন।

বৃহস্পতিবার বিকাল ৩টায় উত্তরার ৬ নম্বর সেক্টরের দাদা গার্মেন্টস প্রাঙ্গণে দোয়া মাহফিলের মাধ্যমে তিনি তার নির্বাচনি কার্যক্রম শুরু করেন।
ডিএনসিসির ১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আফসার উদ্দিন খাঁনের সভাপতিত্বে এ সময় ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি মাহাবুবুর রহমান হিরণ, যুগ্ম সম্পাদক মতিউর রহমান মতি, ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক এস এম মাহবুব আলম, আইন সম্পাদক অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান, ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ৫৪ নং ওর্য়াড কাউন্সিলর জাহাঙ্গীর হোসেন যুবরাজ, ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ৪৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃ শরিফুল ইসলাম ভূইয়া, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের কার্যকরী সদস্য রফিকুল ইসলাম বেপারী, মো. মহিবুল হাসান, কাজী সালাউদ্দিন পিন্টু, দক্ষিণখান থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এ কে এম মাসুদুজ্জামান মিঠু, উত্তরখান ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আতিকুর রহমান মিলনসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে ঢাকা-১৮ আসনের কেটলি মার্কার প্রার্থী খসরু চৌধুরী বলেন, আমি এমপি নির্বাচিত হলে ঢাকা-১৮ আসনের নাগরিকদের সিটি কর্পোরেশনের নিকট থেকে প্রাপ্য সকল সুযোগ-সুবিধা সুনিশ্চিত করা হবে। জরুরি ভিত্তিতে ড্রেনেজ ও পয়ঃনিষ্কাশনের পদক্ষেপ গ্রহণ, রাস্তা উন্নয়ন, নির্মাণ ও সংস্কার করা, সুপেয় পানি সরবরাহের ব্যবস্থা উন্নয়ন ও গ্যাস প্রবাহ সমস্যার সমাধান করা হবে। মানসম্মত শিক্ষা ব্যবস্থা বাস্তবায়ন ও দরিদ্র ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের জন্য উপবৃত্তি প্রদান করা হবে। ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানসমূহের উন্নয়ন ও বিনামূল্যে ওয়ার্ড ভিত্তিক ধর্মীয় শিক্ষা প্রদান করা হবে। মাদক, সন্ত্রাস, ঘুষ ও দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। প্রতিটি ওয়ার্ডে কমপক্ষে একটি করে খেলার মাঠ নির্মাণ, মাদক থেকে দূরে থাকার জন্য শিশু, কিশোর ও যুবকদের মাঝে ক্রীড়া সরঞ্জাম প্রদান করা হবে। চিকিৎসা ব্যবস্থা উন্নয়ন, দরিদ্রদের মাঝে চিকিৎসা সহায়তা ও স্বাস্থ্য ক্যাম্পের মাধ্যমে চিকিৎসা সেবা প্রদান। কারিগরী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার মাধ্যমে বেকার যুব সমাজের বেকারত্ব দূরীকরণ করা হবে। ঢাকা-১৮ সংসদীয় আসনে একটি বয়স্ক পূর্নবাসন কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করা হবে। অঞ্চলভেদে প্রয়োজনীয়তার নিরিক্ষে সরকারি হাসপাতাল ও কবরস্থান নির্মাণ করা হবে। প্রতিবন্ধী ও কন্যা দায়গ্রস্ত পিতা-মাতাকে সাধ্যমত সহযোগিতা প্রদান করা হবে।

তিনি বলেন, চাঁদাবাজ ও ভূমি দস্যুদের দৌরাত্ম বন্ধে আপোষহীন নীতি গ্রহণ করা হবে। ঢাকা-১৮ সংসদীয় আসনের বিভিন্ন মহল্লাকে সিসি ক্যামেরার আওতায় আনা হবে। ঢাকা-১৮ সংসদীয় আসনের বিভিন্ন বাজারে ব্যবসার সুবিধার জন্য বিনামূল্যে ইন্টারনেট হটস্পট সুবিধা গড়ে তোলা হবে।
ধর্মীয় ও সামাজিক প্রতিষ্ঠান মসজিদ, মাদ্রাসা, মন্দির, স্কুল, কলেজ, স্থাপন ও উন্নয়নে কাজ করা হবে। সেক্টর কল্যাণ সমিতিগুলোতে নিয়মিত নির্বাচনের মাধ্যমে প্রতিনিধি নির্বাচনের সুব্যবস্থা করা হবে। মশক নিধন অভিযান জোরালো করা হবে। কিশোর গ্যাং এর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

খসরু চৌধুরী আরও বলেন, প্রতিটি ওয়ার্ডে মর্নিং ওয়াক এর জন্য ওয়াক ওয়ে নির্মাণ করা হবে। প্রতিটি ওয়ার্ডে একটি করে মানসম্মত কমিউনিটি সেন্টার স্থাপন করা হবে। শিক্ষিত বেকার পুরুষ/মহিলাদের বেকারত্ব দূরীকরণে এলাকায় নতুন নতুন শিল্প কারখানা স্থাপন করা। হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ও রেলস্টেশন এলাকার নিরাপত্তা বিধানে হকার মুক্ত ফুটপাত থাকবে। ঢাকা-১৮ আসনের প্রতিটি থানায় ফায়ার সার্ভিস স্টেশন স্থাপন করা হবে। মার্কেট সমূহে গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচনের মাধ্যমে নেতৃত্ব নির্বাচন করা হবে। ফুটপাত, মার্কেট, অটো-টেম্পু স্ট্যান্ড, বাস টার্মিনাল সমূহ হকার ও চাঁদাবাজ মুক্ত করা হবে। নিম্ন আয়ের বসবাসকারী নাগরিকদের সরকারি ও বেসরকারি সাহায্য সহযোগিতা প্রদান করা হবে।

১৮-আসনের সার্বিক উন্নয়নমূলক কাজ করার জন্য কেটলি মার্কায় ভোট ও তার জন্য সকলের কাছে দোয়া চান ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক মো. খসরু চৌধুরী সিআইপি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *