মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের বসতবাড়ি ভাঙচুর! ন্যায় বিচারের দাবিতে মুক্তিযোদ্ধারাও স্থানীয় কাউন্সিলর

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি

সিদ্ধিরগঞ্জে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের বাড়িঘর ভাংচুরের ঘটনায় সন্ত্রাসীদের হুশিয়ারী দিয়েছেন সিদ্ধিরগঞ্জের মুক্তিযোদ্ধারা ও স্থানীয় কাউন্সিলর রুহুল আমিন মোল্লা।
গত ১৬ জুলাই সিদ্ধিরগঞ্জ থানাধীন চৌধুরীবাড়ি বৌ-বাজার ক্যানেলপাড় এলাকায় মরহুম বীর মুক্তিযোদ্ধা মুজিবুর রহমানে পৈতৃক বসত বাড়িতে শাহাবুদ্দীন এর সন্ত্রাসী হামলা ও ঘরবাড়ি ভাংচুরের কারনে সোমবার (১ আগষ্ট) সকালে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার বীর মুক্তিযোদ্ধাগণ ও নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন এর ৮ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রুহুল আমিন মোল্লা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের পাশে দাড়াতে নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো. শাহজাহান ভূইয়া জুলহাসের নেতৃত্বে এ সময় উপস্থিত ছিলেন যুদ্ধকালীন ডেপুটি কমান্ডার মো. আব্দুল মতিন, সহকারী কমান্ডার নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা এহসান কবির রমজান, কমান্ডার নুর ইসলাম, বীর মুক্তিযোদ্ধা মহিউদ্দিন মোল্লা, মুজিবুর রহমান সাউদ, আবুল হাশেম ভান্ডারি, মোহাম্মদ আলী, তাজুল ইসলাম কাতা, ইউসুফ মোল্লা, শরীফ উল্লাহ সাউদ প্রমুখ। মুক্তিযোদ্ধাদের পরিদর্শনের সংবাদ পেয়ে পেয়ে পর পর তিনবার জনতার ভোটে নির্বাচিত জননন্দিত নাসিক ৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. রুহুল আমিন মোল্লা ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন।

সন্ত্রাসীদের বর্বরোচিত হামলার তীব্র নিন্দা করে মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো. শাহজাহান ভূইয়া জুলহাস বলেন, মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের উপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাই। ভাংচুরের সময় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর উপস্থিতিতে সন্ত্রাসী হামলা ও ভাংচুরের ঘটনা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না আমরা এই এলাকার সন্তান আমরা মুক্তিযোদ্ধা। মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের উপর হামলা হবে এটা কোনভাবেই প্রশ্রয় দেয়া যাবেনা। প্রয়োজনে সন্ত্রাসীদের প্রতিরোধ করা হবে। আমি আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে বলতে চাই, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ নিরপেক্ষভাবে তদন্ত করে আপনারা সঠিক বিচার করুন অন্যায়ভাবে একটি গোষ্ঠীর কথা শুনে একটি নীরিহ মুক্তিযোদ্ধার পরিবারের ওপর এভাবে হামলা হবে এটা আমরা মেনে নিতে পারি না।আমরা ন্যায়ের পক্ষে। ভূমি সন্ত্রাসীদের উদ্দেশ্য করে আরো বলেন,আপনারা আসুন কাগজপত্র নিয়ে, বসুন, অবশ্যই সমাধান হবে।কিন্তু তা না করে সন্ত্রাসী কায়দায় কেনো এ ভাবে একটি নিরিহ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের উপর ক্ষমতার প্রভাব দেখিয়ে জমি দখলের চেষ্টা করছেন।

কাউন্সিলর রুহুল আমিন মোল্লা বলেন, আমি জানতে পেরেছি রব সাহেবের এক ছেলে সেনাবাহিনীর একজন কর্মকর্তা তার সহযোগীতায় সাদা পোশাকে একদল আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী নিরীহ মানুষের উপর এভাবে লাঠিচার্জ করবে, আমার মনে হয় এটা আইনের বহির্ভূত।আমার মনে হয় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে হয়তো ভূল বুঝানো হয়েছে।

দেশে আইন আছে, আদালত আছে- একজন জনপ্রতিনিধি হিসেবে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীদেরকে বলবো, আপনারা আমাদেরকে সহযোগিতা করুন আমরা সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে সমাধান করে দিব। আমরা সমাজকে সুন্দর ভাবে সাজাতে চাই।কোন ভূমিদস্যু, মাদক কারবারি ও অবৈধভাবে ক্ষমতার বড়াই দেখতে চাইনা।

আমি রব সাহেবকে উদ্দেশ্য করে বলতে চাই, আপনি একজন ক্ষমতাসীন ব্যক্তি আপনার ক্ষমতা ভালো কাজে লাগান, মানুষের উপকারে আসবে আপনার ক্ষমতার অপব্যবহার করবেন না। তাহলে একদিন আল্লাহর কাছে জবাবদিহিতা করতে হবে।
এর সাথে শাহাবুদ্দিন কে বলতে চাই আপনি আমাদের এলাকার একজন ব্যবসায়ী। আপনার জন্য সব ধরনের সহযোগিতা থাকবে কিন্তু আপনি কারো প্ররোচনায় পড়ে ভূমি দস্যুর খাতায় নাম লিখতে যাইয়েন না।আমরা কোন নিরহ মানুষের উপর অত্যাচার সহ্য করবো না।

তিনি আরো বলেন,সকল আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর দেরকে বলতে চাই আপনারা সুষ্ঠু তদন্ত করে কাগজপত্র দেখে আপনারা কারও পক্ষ না হয়ে নিরপেক্ষভাবে বিচার করেন যে এই জায়গাটা আসলে কার।কারো প্রভাবে প্রভাবীত না হয়ে ন্যায়ের পক্ষে থাকুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *